সাহিত্যানুরাগী কামরুল ইসলামের গল্প

সোমবার, ১৫ জুলাই ২০১৯ | ১:০৬ পূর্বাহ্ণ | 1003 বার

সাহিত্যানুরাগী কামরুল ইসলামের গল্প
ছবি-সহকারি শিক্ষা অফিসার কামরুল ইসলাম

সকাল হলেই বেড়িয়ে পড়েন স্কুলে স্কুলে। সারাদিন নানা কর্মব্যস্ততায় দিন কাটানো। বেলা শেষে বাড়ি ফিরে ক্লান্ত শরীরে বসে পড়েন কবিতা লিখতে বা গান গাইতে। অসাধারণ এই প্রতিভাধর ব্যক্তির নাম মো. কামরুল ইসলাম কাঞ্চন।

পাবনার চাটমোহর উপজেলা শিক্ষা অফিসে সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। ইতিমধ্যে উপজেলা জুড়ে সজ্জন, বন্ধু বৎসল ও সৃজনশীল লেখক হিসেবে পরিচিত পেয়েছেন তিনি। লিখেছেন বেশ কয়েকটি কবিতার বই। দেশের নামকরা প্রকাশনি থেকে তার কবিতার বইগুলো ছাপাও হয়েছে।

১৯৭৯ সালের ৫ জুন রাজশাহীর বাঘা উপজেলার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন মো. কামরুল ইসলাম কাঞ্চন। তার বাবা মো. আবদুল মজিদ ছিলেন একজন চিকিৎসক। মা ফিরোজা বেগম গৃহিণী।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে এমএসএস করা এই ব্যক্তি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে চাটমোহর পৌর শহরের নারিকেল পাড়া এলাকায় বসবাস করেন।

ছোট বেলা থেকেই ধীরস্থির এই লেখক সংগীত ও সাহিত্যে চর্চা নিমগ্ন থাকতেন। এখন সরকারি চাকুরির সুবাদে চাটমোহরে শিক্ষায় তিনি অনবদ্য ভূমিকা রেখে চলেছেন।

সৃজনশীল লেখনীর জন্য প্রতিভার স্বীকৃতি স্বরুপ ‘কবিতা সংসদ সাহিত্য পদক-২০১৮’তে ভূষিত হয়েছেন মো. কামরুল ইসলাম। এছাড়া সারা বাংলা সাহিত্যে সংসদ পুরস্কার ২০১৯ এ ভূষিত হয়েছেন।

তার প্রকাশিত একক কাব্যগ্রন্থ হলো, হৃদয়ের পূর্ণতা ও প্রকৃতি ও প্রেম। এছাড়া বাংলাদেশ ও ভারতের কবিদের সমন্বয়ে যৌথ কাব্যগ্রন্থ হলো- ‘শরতের মেঘলা আকাশ’, ‘দুনয়নের স্বপ্নীল ভাবনা’, ‘ওরা জেগে আছে চেতনায়’, ‘সুবর্ণা রেখার আলপনা’।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign