শামসুদ্দিন খবিরের ‘সবুজ প্রেম’

সোমবার, ১২ নভেম্বর ২০১৮ | ১০:৫১ অপরাহ্ণ | 1184 বার

শামসুদ্দিন খবিরের ‘সবুজ প্রেম’
সংগৃহিত ছবি

‘চারতলা ভবনের শরীর জুড়ে সবুজে জড়ানো। যেন সবুজ রঙ লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। যা ইট সিমেন্টের বাড়িটিকে দিয়েছে আলাদা সৌন্দর্য। পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় দৃষ্টি আটকে যায় বাড়িটির দিকে। অন্যরকম ভাল লাগায় মন যেন হারিয়ে যায় সবুজের মাঝে। ধুলোবালির শহরে যেন এক টুকরো সবুজ।’

এমনই এক ভাললাগার মতো সবুজে জড়ানো বাড়ির দেখা মিলবে পাবনার চাটমোহর বাসস্ট্যান্ড এলাকায়। পাবনা-৩ এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি এ কে এম শামসুদ্দিন খবিরের বাড়ি এটি। গাছগাছালি আর সবুজের প্রতি ভালবাসা থেকে তার এই উদ্যোগ।

চাটমোহরে আসা-যাওয়ার পথে বাসস্ট্যান্ড’র পাশে এই বাড়িটি এখন দৃষ্টি কাড়ছে সবার। সবুজ লতাপাতা ও  ফুল গাছ সাদামাটা বাড়িটিকে দিয়েছে ভিন্ন মাত্রা। পথচারীরা যাবার পথে কিছুক্ষনের জন্য হলেও থমকে দাঁড়ান। চোখে তুলে অপলক তাকিয়ে দেখেন প্রকৃতির মায়া।

উত্তর ও পশ্চিম পাশের প্রায় পুরোটা দেয়াল জুড়ে থাকা শোভা বর্ধনকারী লতা জাতীয় গাছগুলো পরম মমতায় আটকে রেখেছে ইট সিমেন্ট বালির দেয়ালটি। শুধু দেয়ালই নয়, চারতলা বাসার ছাদের টবে টবে রয়েছে বাহারী ফল, ফুল ও শোভা বর্ধনকারী নানা প্রজাতির গাছ। ছাদটাও যেন এক টুকরো সবুজের বাগান।

Sobuj Bari-002

বাড়ির মালিক অ্যাডভোকেট এ কে এম শামসুদ্দিন খবির জাতীয় পার্টির সময় পাবনা-৩ এলাকার সংসদ সদস্য ছিলেন। আওয়ামীলীগ থেকে উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। দীর্ঘদিন কাজ করেছেন মানুষের সাথে। এখন পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সীমিত পরিসরে রাজনৈতিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত আছেন। অনেকদিন ধরে প্র্যাকটিস করছেন সুপ্রীম কোর্টে।

সম্প্রতি তার সাথে কথা বলতে যাওয়া হয় বাসস্ট্যান্ডের ওই বাড়িতে। শীতের সকালটা কেবল আড়মোড়া ভেঙে বেলা গড়িয়ে ১১টার ঘরে। চারতলা বাড়ির ছাদে গাছগুলোর পরিচর্যা করছিলেন তিনি। সদা হাস্যোজ্জল মানুষটির সাথে কুশল বিনিময়ের পর আলাপচারিতা শুরু।

আলাপকালে সাবেক সংসদ সদস্য শামসুদ্দিন খবির বলেন, “গাছ গাছালীর সৌন্দর্য বরাবরই মুগ্ধ করে আমায়। বিশেষ করে সবুজের প্রতি আলাদা একটা ভালবাসা রয়েছে। তাই অবসর সময়টুকু গাছ-গাছালীর পরিচর্যা করি। বছর তিনেক আগে ঢাকার কাকরাইলের খ্রিষ্টান মিশনারীর দেয়ালে শোভাবর্ধণকারী সবুজ গাছগুলোর সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হই। সেখান থেকে এ গাছগুলো এনে দেয়ালের পাশে লাগিয়ে দিই। তর তর করে বাড়তে থাকে গাছগুলো।’

তিনি আরও বলেন, ‘সেদিনের লাগানো এতটুকু গাছ আজ প্রায় চারতলার ছাদ ছুঁয়েছে। মানুষ রাস্তা দিয়ে যাবার সময় তাকিয়ে দেখে। হয়তো গাছগুলোর সৌন্দর্য আমার মতই তাদেরকেও মুগ্ধ করে। ঢাকায় বসবাস করি। প্রায়ই বাড়িতে আসি। বাড়িতে আসলেই গাছ-গাছালীর যত্ন নেই। আমার অবর্তমানে আমার স্ত্রী অ্যাডভোকেট ইতি হোসেন স্বপ্না এবং আমার এক মামা ধুলাউড়ি গ্রামের তয়জাল সরদার পরম মমতায় গাছ গাছালীগুলোর পরিচর্যা করে।’

Sobuj Bari-003

ছাদ বাগানে গাছের পরিচর্যা করতে করতে তিনি বলেন, ‘এই ছাদে ফলের মধ্যে বারোমাসী আম, বেদানা, মিষ্টি তেতুল, পেয়ারা, লেবু, জাম্বুরা, কামরাঙা, আমড়া, আমলকী, করমচা, ফুলের মধ্যে হাসনা হেনা, বিভিন্ন রঙ ও প্রজাতির গোলাপ, রঙ্গন, এ্যালামন্ডা, নয়নতারা, গন্ধরাজ, রজনীগন্ধা, জুঁইফুল ছাড়াও ক্যাকটাস, খ্রিষ্টমাস ট্রি, অস্ট্রেলিয়ান ঝাউ গাছ, বিভিন্ন প্রজাতির পাতাবাহার গাছ রয়েছে। নিজের হাতে গাছের পরিচর্যা করা, পানি দেওয়া, আগাছা পরিষ্কার করার মজাই আলাদা।’

প্রকৃতি প্রেমিক ও দ্বীনবন্ধু রায় মোবাইল গ্যালারীর স্বত্তাধিকারী রনি রায় এক প্রতিক্রিয়ায় জানান, অনেকের ধন (সম্পদ) থাকলে মন থাকে না। কারো বা আবার মন থাকলেও ধন (সম্পদ) থাকে না। সেক্ষেত্রে নিজের অনেক সম্পদ বা জমি থাকলেও সখের বশে অ্যাডভোকেট শামসুদ্দিন খবির ছাদবাগান ও বাড়ির দেয়ালে শোভাবর্ধনকারী গাছ লাগিয়ে নিজেকে সবুজ প্রেমিক হিসেবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন।

এ বিষয়ে চাটমোহর সরকারি ডিগ্রি কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক বিউটি সরকার বলেন, দিনে দিনে গাছপালা কেটে ফেলা হচ্ছে। সবুজ হারিয়ে যাচ্ছে। পরিবেশ হয়ে উঠছে রুক্ষ। বিশেষ করে শহর অঞ্চলে এটা আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। সেক্ষেত্রে বাসা-বাড়ির ছাদে ফল, ফুলের বাগান করা ও শোভাবর্ধনকারী গাছ লাগানো খুব ভাল একটা উদ্যোগ। এতে শুধু বাড়ির সৌন্দর্যই বাড়ায় না, আমাদের মনের খোরাক জোগায়। তেমনিভাবে এটি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। এছাড়া অক্সিজেন জোগান দেয় এবং বাড়িকে ঠান্ডা রাখতে সহায়তা করে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign