সাঁথিয়ায় রুডোর উদ্যোগে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে আলোচনা

সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৭:২৬ অপরাহ্ণ | 265 বার

সাঁথিয়ায় রুডোর উদ্যোগে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে আলোচনা

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার সদরের ছন্দা গ্রামে রোববার বিকেলে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা পল্লী উন্নয়ন সংস্থার (রুডো) উদ্যোগে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন জার্মানির বায়ু শক্তি গবেষণা পতিষ্ঠান ওয়াল্ড ওয়াইল্ড ইউনড এনার্জি এসোসিয়েশন বনের ভাইস প্রেসিডেন্ড ভলকার থমসন।

রুডোর প্রধান নির্বাহী পরিচালক শামীম রেজার সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন লাইফ কনসালটিং এ্যান্ড ডেভলপম্যান্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রিয়েল আহসান, জার্মানির এ্যাপলাইড সাইন্স অফ লিউব্যাক গবেষক ও রুডোর প্রধান পরামর্শক নূর নিগার সুলতানা, রুডোর নির্বাহী পরিচালক ময়নুল হক, অর্থ বিষয়ক পরিচালক খন্দকার জুয়েল, মুক্তিযোদ্ধা একেএম সোহরাব আলী, সাঁথিয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা সুলতানা শিলা, ছোন্দহ স্কুল এ্যান্ড কলেজ অধ্যক্ষ মো:আলমগীর হোসেন ও সাঁথিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে এলাকার মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, সাংবাদিক, পেশাজীবি, আইনজীবি সহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অংশ গ্রহণ করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভলকান থমসন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাংলাদেশের মানুষ ,প্রকৃতি, ও অন্যান্য প্রাণীকুল মারাত্তক ভাবে ঝুকির মধ্যে আছে। আর এই জলবায়ুর বিরুপ আচরনের জন্য বাংলাদেশ যেমন দায়ী তার চেয়েও শিল্প উন্নত দেশগুলো বেশী দায়ী। ভবিষৎ প্রজম্ম ও বিশ্ব জলবায়ুকে রক্ষার জন্য অতীত ও বর্তমানের ভুলগুলি সংশোধন করা উচিত। সবুজ শক্তি-প্রযুক্তি এবং সুষ্ঠ অর্থনীতি এবং জৈব খাবার ও প্রাকৃতিক প্রতিকারের মাধ্যমে এ সংশোধন সম্ভব।

ভলকান থমসন আরও বলেন, সুন্দর এই পৃথিবী নামের গ্রহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রাণী হলো জীবানু। তবে দুঃখের বিষয় এই যে, আমরা এখানো এই গুরুত্বপূর্ণ প্রাণী জীবানুকে পুরোপুরিভাবে স্বীকৃতি জানাতে পারিনি। চিকিৎসা বিজ্ঞান মানবজাতির কল্যাণে অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কার করেছে। যা মানুষের দ্রæত রোগ নিরাময়ে সাহায্য করছে।অ্যান্টিবায়োটিকের মতো আধা-প্রাকৃতিক পদার্থ আমাদের শরীরের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ধংস করে দিচ্ছে। যা মানবজাতির জন্য হুমকি স্বরুপ। তবে এর কিছু প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক আছে। যেমন-রসুন, আদা, তুলসি, কালোজিরা অন্যতম।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সমাজের মানুষের কাছে কিছু মুখরোচক খাবার অতি প্রিয়। যা জাঙ্ক ফুড নামে পরিচিত। এটি মুখরোচক হলেও শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। আর এই জাঙ্ক ফুড থেকে শরীরে বাসা বাধছে ভয়ঙ্কর রোগগুলি যা-ডায়াবেটিস, ক্যান্সার ইত্যাদি নামে পরিচিত। যার ফল নিশ্চিত মৃত্যু। আমাদের শক্তির প্রয়োজনে যদি জীবাশ্ম জ্বালানী ব্যবহার করি তা জাঙ্ক ফুডের মতোই আমাদের পৃথিবী নামক গ্রহের ক্ষতি করছে। মাবনজাতির জন্য যে পদার্থটি আর্শীবাদ হয়ে এসেছিল তার নাম প্লাষ্টিক। কিন্তুু বর্তমানে এটি মানুষ ও পরিবেশের জন্য অভিশাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি বর্তমানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই সমস্যা হতে কিভাবে এই বিশ্ব ও বিশ্বের সমস্ত প্রাণীকুলকে রক্ষা করা যায় তার জন্য জন-সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে রুডোর প্রধান নির্বাহী পরিচালক শামীম রেজা বলেন, রুডো দীর্ঘদিন ধরে গ্রামীন জনপদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে । শিক্ষা, স্বাস্থ্য সহ বিভিন্ন বিষয়ে সাধারণ মানুষকে সহযোগিতা দিচ্ছে। বর্তমানে জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কাজ শুরু করেছে। কিভাবে দেশের টেকসই উন্নয়ণ ও স্বপ্ন পূরণ করা যায় সে বিষয়কে সামনে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign