ফলোআপ

ময়ছের শেখকে প্রধান অতিথি করে সংবর্ধনা জানালো শিক্ষার্থীরা

বুধবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৯:০৬ অপরাহ্ণ | 851 বার

ময়ছের শেখকে প্রধান অতিথি করে সংবর্ধনা জানালো শিক্ষার্থীরা
ময়ছেরের হাত থেকে পুরস্কার নিচ্ছেন শিক্ষার্থীরা
Advertisements

রিকশা-ভ্যান চালিয়ে সংসার চলে ময়ছের শেখের (৩৮)। দিন এনে দিন খাওয়া ময়ছের শেখের নামই বা জানে কয়জন। কিন্তু সম্প্রতি তার এক অসাধারণ সততার কাজ চিনিয়েছে তাকে।

তার রিক্সায় ফেলে যাওয়া আমেরিকা প্রবাসী এক ব্যক্তির ব্যাগভর্তি টাকা আর ভিসা ফিরিয়ে দেন ময়ছের শেখ। কিন্তু তাকে নুন্যতম সম্মান বা কৃতজ্ঞতা জানাননি সেই প্রবাসী।

কিন্তু তাতে কি। সততা উজ্জল দৃষ্টান্ত রাখা ময়ছের শেখকে সম্মান জানাতে ভুল করেনি স্কুলের শিক্ষার্থীরা। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তাকে প্রধান অতিথি হিসেবে সংবর্ধনাও দেয় তারা। ময়ছের শেখের হাত থেকেই পুরস্কার নেয় শিক্ষার্থীরা।

বুধবার সকালে পাবনার কাশিনাথপুর হাইস্কুল মাঠে এ ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানের অয়োজন করে কাশিনাথপুর বিজ্ঞান স্কুল এন্ড কলেজ ও স্কাইলার্ক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল।

কাশিনাথপুর বিজ্ঞান স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আলাউল হোসেন জানান, বুধবার প্রতিষ্ঠানে ছুটি ছিল। এদিন সকালে কাশিনাথপুরে আন্ত:স্কুল ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এ আয়োজন করার কথা শুনে তার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ময়ছের সেখকে প্রধান অতিথি করার আগ্রহ দেখায়। একই সাথে ওই ময়ছের সেখকেও তারা সংবর্ধনা দেয়ার কথা জানায়। স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের সাথে একমত হয়ে তাকে প্রধান অতিথি করেন।

Rikswapullar honesty-2

পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ময়ছের শেখ বলেন, ‘আমি কোন কিছু পাওয়ার জন্য ডলারের ব্যাগ মালিককে পৌছে দেইনি। পরের জিনিস আত্মসাৎ বা পরের জিনিসের প্রতি লোভ নেই আমার। ২০ বছর ধরে রিক্সা-ভ্যান চালাই। জীবনে এরকম আরও দু’য়েকবার টাকা-পয়সা পেয়েছি। মালিককে খুঁজে খুঁজে তা ফেরত দিয়েছি। আমার ছেলে-মেয়েকেও পরের জিনিস না নেয়ার শিক্ষা দিয়েছি। আমার হাত থেকে ছাত্ররা পুরষ্কার নিল। আমি ধন্য।’

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমি আশা করি তোমরা বড় হয়ে দুর্নীতি করবে না।’

ফুটবল খেলা দেখতে আসা স্কাইলার্ক স্কুলের ১০ শ্রেণির ছাত্র সিয়াম মাসুম বলে, ‘আগামীতে কোন পরীক্ষায় সৃজনশীল প্রশ্নে ময়ছের শেখের উপর উদ্দীপক দেয়া হোক।’

কাশিনাথপুর বিজ্ঞান স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র রাফসানুল হক সাদি বলে, ‘আজ ময়ছের চাচার মত অতি সাধারণ একজন মানুষের হাত থেকে পুরস্কার গ্রহণ করায় আমরা নতুন এক শিক্ষা গ্রহণ করলাম।’

কাশিনাথপুরের বিজ্ঞান স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি ডা. আমিনুল ইসলাম সানু জানান, এই রিকশওয়ালা একজন সত্যিকারের গুণী মানুষ। তথাকথিত হোমড়া-চোমড়া, অসৎ ব্যক্তির হাত থেকে পুরষ্কার নেয়ার বদলে একজন সৎ রিকশাওয়ালার হাতে থেকে শিক্ষার্থীদের পুরষ্কার নেয়ার মানসিকতা অবশ্যই প্রশংসাযোগ্য।

পাবনার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ (অব:) মাহাতাব বিশ্বাস বলেন, এই কাজটি করায় ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাসে নৈতিক শিক্ষা দেয়ার চেয়ে সুফল বয়ে আনবে। তাদের সারা জীবনের জন্য মনে একটি ইতিবাচক দাগ কাটবে।

অভিভাবকদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাফরুন্নার শেলী, শেখ শামীম। শিক্ষকদের মধ্য থেকে প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম খান অঞ্জন কথা বলেন। উল্লেখ্য, সকাল সাড়ে ৭ টায় খেলা শুরু হয় এবং কাশিনাথপুর বিজ্ঞান স্কুল এন্ড কলেজ স্কাইলার্ক ইন্টারন্যাশনাল স্কুলকে হারিয়ে ২-০ গোলে বিজয়ী হয়।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh