বহু আকাঙ্খিত ডাকসু নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু

সোমবার, ১১ মার্চ ২০১৯ | ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ | 465 বার

বহু আকাঙ্খিত ডাকসু নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু
সংগৃহিত ছবি
Advertisements

সব প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে ২৮ বছর পর অবশেষে শিক্ষার্থীদের বহু আকাঙ্খিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে।

সোমবার (১১ মার্চ) সকাল ৮টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ হলে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। একটানা চলবে দুপুর ২টা পর্যন্ত। এরপরেই ফলাফল প্রকাশ করা হবে। মোট ভোটার রয়েছে ৪৩ হাজার ২৫৬ জন।

কেন্দ্রীয় সংসদে অংশ নিচ্ছে ১৩টি প্যানেল ও স্বতন্ত্র থেকে ডাকসুতে ২২৯ জন প্রার্থী। তার মধ্যে সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে ২১ জন এবং সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে ১৪ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়া এজিএস পদে ১৩ জন, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক পদে ১১ জন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক পদে ৯ জন, কমনরুম ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদে ৯ জন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে ১১ জন, সাহিত্য সম্পাদক পদে ৮ জন, সংস্কৃতি সম্পাদক পদে ১২ জন, ক্রীড়া সম্পাদক পদে ১১ জন, ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে ১০ জন, সমাজসেবা সম্পাদক পদে ১৪ জন এবং ১৩টি সদস্য পদের বিপরীতে ৮৬ জন নির্বাচন করছেন।

সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে সম্মিলিত শিক্ষার্থী সংসদ মনোনীত প্রার্থী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ছাত্রদলের মোস্তাফিজুর রহমান, কোটা সংস্কার আন্দোলনের নূরুল হক নূর, প্রগতিশীল ছাত্রজোটের লিটন নন্দী ও স্বতন্ত্র জোটের অরণি সেমন্তি খানের মধ্যে মূল লড়াই হবে।

অন্য প্রার্থীরা হলেন- ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের এসএম আতায়ে রাব্বী, ছাত্রলীগ-বিসিএল নাইম হাসান, ছাত্রমৈত্রীর রাসেল শেখ, ছাত্রমুক্তিজোটের শিহাব শাহরিয়ার সোহাগ।

স্বতন্ত্র ও অন্যান্য ভিপি প্রার্থীরা হলেন- আব্দুল আলীম, গোলাম রাসেল, এডিএম আব্বাস আল কোরেশী, সফিক সরকার, আবদুল্লাহ আল লাবিব, আবদুল্লাহ জিয়াদ, ওমর ফারুক, টিটো মোল্লা, ফাহমিদা মজিদ, শফিকুল ইসলাম, ওমর ফারুক, নকীবুল হাসান ও রাকিবুল ইসলাম।

জিএস পদে ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে গোলাম রাব্বানী, স্বতন্ত্র থেকে এআরএম আসিফুর রহমান, ছাত্র ফেডারেশনের ঢাবি শাখার সভাপতি উম্মে হাবিবা বেনজীর, প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ফয়সাল মাহমুদ সুমন, ছাত্র সমাজের মামুন ফকির, ছাত্রদলের আনিসুর রহমান খন্দকার অনিক, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের মাহমুদুল হাসান, কোটা সংস্কার আন্দোলনের রাশেদ খাঁন, ছাত্র মুক্তিজোটের রাশেদুল ইসলাম, ছাত্রলীগ জাসদ থেকে শফিকা রহমান শৈলী, স্বতন্ত্র জোটের শাফী আবদুল্লাহ, ছাত্রলীগ বিসিএল শাহরিয়ার রহমান, ছাত্রমৈত্রীর সনম সিদ্দিকী ও স্বতন্ত্র থেকে জালাল আহমেদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অন্যদিকে হল সংসদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সর্বমোট ৫০৯ জন প্রার্থী। প্রতিটি হলে ১৩টি করে পদ রয়েছে। অনেকে আবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে গেছেন।

১৯৯০ সালের জুলাই মাসে শেষবার ব্যালট হাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিল শিক্ষার্থীরা। মাঝখানে কেটে গেছে ২৮ বছর। নির্বাচিত প্রতিনিধির অভাবে নিজেদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছিল প্রতিনিয়ত।

সবাই ডাকসু নির্বাচনের আগ্রহ দেখালেও মূলত ক্ষমতাসীনদের উদাসীনতায় বিভিন্ন সময় উদ্যোগ নিলেও ভেস্তে গেছে সব আয়োজন। এবার আদালতের রায়ের বাধ্যবাধকতায় বহুল প্রত্যাশিত ডাকসু ও হল সংসদের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh