‘বন্ধুর স্ত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ায় মিঠু খুন’

সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮ | ৬:৫৫ অপরাহ্ণ | 498 বার

‘বন্ধুর স্ত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ায় মিঠু খুন’
নিহত মিঠু
Advertisements

পাবনার ঈশ্বরদীতে বন্ধুর স্ত্রীকে মোবাইলে প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ার ‘অপরাধে’ বন্ধু মিঠু ইসলামকে (২৭) হত্যা করে প্রতিশোধ নিয়েছে স্বামী-স্ত্রী। বেড়ানোর কথা বলে বন্ধু মিঠুর রিকশায় চড়ে এক ঘন্টা ঘুরে বেড়ানোর পর তাকে নির্জন স্থানে নিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করে লাশ গুম করে দেয় সাগর শেখ ও তার স্ত্রী জবা বেগম।

শারিরিক প্রতিবন্ধী রিকশা চালক মিঠু ইসলাম নিখোঁজের ১০ দিনের মাথায় তার গলিত লাশ উদ্ধারের পর পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনা।

পুলিশ মোবাইল ফোনের কললিস্ট ধরে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারে নিশ্চিত হয়ে মিঠুকে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত স্বামী সাগর শেখ ও তার স্ত্রী জবা বেগমকে গ্রেফতার করেছে।

তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নিহত মিঠুর মোবাইল ফোন, অটোরিকশা এবং যে দা দিয়ে কুপিয়ে মিঠুকে হত্যা করা হয়েছিল সেই দা উদ্ধার করেছে। এই হত্যাকান্ডের কথা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে অকপটে শিকারও করেছে ঘাতক স্বামী-স্ত্রী।

তাদের গ্রেফতারের পর ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিম উদ্দীন ও এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) বিকাশ চক্রবর্তী সাংবাদিকদের জানান, স্মরণকালে ঈশ্বরদীতে এমন নৃশংস হত্যাকান্ডের ঘটনা আর ঘটেনি। নিহত অটোরিকশাচালক মিঠু ইসলাম ঈশ্বরদীর শৈলপাড়া এলাকার আব্দুল মজিদের ছেলে। সে শারিরিকভাবে প্রতিবন্ধী ছিল, একটি ব্যাটারিচালিত রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো মিঠু।

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জবা বেগম জানান, রিক্সাচালক মিঠুর সাথে তার স্বামী সাগর শেখের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের সুবাদে তার সাথে আমার পরিচয় হয়। এই পরিচয়ের সুবাদে সে আমাকে মোবাইলে কথা বলার সময় প্রেমের প্রস্তাব দেয়। আমি এ কথা আমার স্বামী সাগর শেখকে জানালে সে ক্ষুব্ধ হয়ে মিঠুকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

পুরাতন ঈশ্বরদীর বিদিক মোড়ের মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে সাগর শেখ জানায়, আমার স্ত্রীকে মিঠু পরকিয়া প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ার কথা শুনে আমার মাথায় খুন চেপে বসে। তারপর থেকে আমি ওকে খুন করার পরিকল্পনা করি। একপর্যায়ে গত ৪ আগষ্ট তাকে আমার স্ত্রী প্রেমের প্রস্তাবে রাজি হওয়ার নাটক সাজিয়ে বেড়াতে যাওয়ার প্রস্তাব দিলে আমরা দুজন ব্যাগে একটা দা নিয়ে ওর রিকশায় চড়ে এক ঘন্টা ঘুরে বেড়াই।

ওই দিন সন্ধ্যার সময় ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়কের বিএসআরআই সংলগ্ন নির্জন স্থানে এনে দা দিয়ে কুপিয়ে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে সেখানেই লাশ ফেলে ওর রিকশা ও মোবাইল নিয়ে আমরা পালিয়ে যাই। পরে রিকশার রং বদলিয়ে দাশুড়িয়ার কামালপুরে রবিউল ইসলাম নামের একজনের নিকট ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি করি। পুলিশ রিকশার ক্রেতা রবিউল ইসলামকেও গ্রেফতার করেছে, রবিউল ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া কামাল পুর এলাকার আব্দুর রবের ছেলে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ আগষ্ট ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়কের বিএসআরআই সংলগ্ন এলাকার ঝোপের মধ্যে থেকে প্রতিবন্ধী রিকশাচালক মিঠু ইসলামের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

খোঁজখবর/এসআর

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh