মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের প্রয়াণ দিবস

পৈত্রিক বাড়িতে পূর্নাঙ্গ স্মৃতি সংগ্রহশালা না হওয়ায় ক্ষোভ

শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২০ | ১:২৮ অপরাহ্ণ | 702 বার

পৈত্রিক বাড়িতে পূর্নাঙ্গ স্মৃতি সংগ্রহশালা না হওয়ায় ক্ষোভ
সুচিত্রা সেনের পাবনাস্থ পৈত্রিক বাড়ি, বৃহস্পতিবার তোলা ছবি (ইনসেটে সুচিত্রা সেন-সংগৃহিত ছবি)।

যার অনবদ্য অভিনয় আজো দাগ কেটে আছে কোটি দর্শকের হৃদয়ে। অভিনয় গুণে যিনি হয়ে উঠেছিলেন দুই বাংলার চলচ্চিত্রপ্রেমী মানুষের মহানায়িকা। তিনি বাংলা সিনেমার কিংবদন্তি নায়িকা পাবনার মেয়ে সুচিত্রা সেন। আজ ১৭ জানুয়ারি সেই মহানায়িকার ৬ষ্ঠ প্রয়াণ দিবস। ২০১৪ সালের এই দিনে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান তিনি। কিন্তু সুচিত্রা সেনের পৈত্রিক বাড়ি উদ্ধারের ছয় বছর পার হলেও গড়ে ওঠেনি পূর্নাঙ্গ স্মৃতি সংগ্রহশালা। এতে ক্ষুব্ধ পাবনাবাসী।

জানা গেছে, সুচিত্রা সেনের শৈশব-কৈশোরের একটি অংশ কেটেছে পাবনা শহরের গোপালপুর মহললার হেমসাগর লেনের পৈত্রিক বাড়িতে। যে বাড়ির প্রতি কোনায় ছড়িয়ে রয়েছে সুচিত্রা সেনের ছুটোছুটির দিনগুলো। দেশ ভাগের আগে সুচিত্রা সেনের বাবা করুণাময় দাসগুপ্ত স্ব-পরিবারে কলকাতায় চলে যান। এর দীর্ঘ কয়েক বছর পর ইমাম গাযযালী ট্রাষ্ট বাড়িটি লিজ নিয়ে ইমাম গাযযালী ইনষ্টিটিউট গড়ে তোলে।

২০০৯ সালে বাড়িটির লীজ বাতিল করে সেখানে সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংগ্রহশালা বা ফিল্ম ইন্সটিটিউট করার দাবিতে আন্দোলনে নামে পাবনার সাংস্কৃতিককর্মীরা। সকল আইনি প্রক্রিয়া শেষে ২০১৪ সালে উচ্চ আদালতের নির্দেশে বাড়িটি সরকারের দখলে নেয় জেলা প্রশাসন।

এরপর বাড়িটিতে স্বল্প পরিসরে ‘সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংগ্রহশালা’ গড়ে তুলে দশ টাকার বিনিময়ে বাড়িটি দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। কিন্তু উদ্ধারের ছয় বছর পরও বাড়িটি জরাজীর্ন অবস্থায় পড়ে আছে। একটি পূর্নাঙ্গ আর্কাইভ গড়ে তোলার কাজে ধীরগতিতে হতাশ ও ক্ষুব্ধ জেলার সাংস্কৃতিকর্মীরা।

সাংস্কৃতিককর্মী শিশির ইসলাম, দেওয়ান মাহবুব, তানিয়া আক্তার তন্বী ও সাথী আক্তার জানান, বাড়িটি উদ্ধারের ছয় বছর পার হয়েছে। কিন্তু এখনও বাড়িটি জরাজীর্ন অবস্থায় পড়ে আছে। ভেতরে শুধু সুচিত্রা সেনের কিছু ছবি ছাড়া কিছু নেই। দর্শনার্থীরা আসলেও সুচিত্রা সেনের বাড়ি দেখে তাদের মন ভরছে না। শুধু আশ^াসের বেড়াজালে বন্দি পূর্নাঙ্গ আর্কাইভ গড়ে তোলার কাজ। দ্রুত স্মৃতি আর্কাইভ কাজ শুরুর দাবি জানান তারা।

সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ড. নরেশ মধু জানান, সরকার ও সংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাথে তারা সবসময় যোগাযোগ করে চলেছেন। বাড়িটি ঘিরে প্রায় দশ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি আধুনিক ভবন করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। যেটি নির্মাণ হলে উত্তরবেঙ্গর সাংস্কৃতিককর্মীদের জন্য একটি মাইলফলক হবে।

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক শাহেদ পারভেজ জানান, সংগ্রহশালাটিকে পূর্নাঙ্গ রুপ দিতে জমি অধিগ্রহণসহ দু’টি প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। জমি অধিগ্রহণের কাজ শেষে দ্রুত স্মৃতি সংগ্রহশালার কাজ শুরু হবে বলে আশা করেন তিনি।

এদিকে. প্রয়াণ দিবস পালনে সুচিত্রা সেনের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি, স্মরণ পদযাত্রা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নানা কর্মসূচী গ্রহণ করেছে পাবনা জেলা প্রশাসন, সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষন পরিষদ সহ বিভিন্ন সংগঠন।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign