বিশ্ব প্রবীণ দিবস আজ

পাবনায় প্রবীণ কল্যাণ ক্লাবে আনন্দের পরশ পাচ্ছেন বয়োবৃদ্ধরা

সোমবার, ০১ অক্টোবর ২০১৮ | ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ | 1665 বার

পাবনায় প্রবীণ কল্যাণ ক্লাবে আনন্দের পরশ পাচ্ছেন বয়োবৃদ্ধরা

যৌবনের তেজোদীপ্ত সময় পার করার পর এখন জীবনের শেষ ধাপ পার করছেন অনেক প্রবীণ। কারো বয়সের ঘর ৭০ পার হয়েছে, কারোবা ৮০ পেরিয়েছে। যে বয়সে সময় কাটানোর মতো কোনো উপলক্ষ্য বা মনের কথা বলার মতো মানুষ পাওয়া হয়ে ওঠে দুষ্কর। তাদের কথা চিন্তা করে পাবনা সদর উপজেলার শ্রীপুর গ্রামে গড়ে উঠেছে প্রবীণ কল্যাণ ক্লাব।

প্রতিদিন বিকেলে খোনে যাতায়াত আড্ডা জমে প্রবীনদের। বয়সের ভারে আর জীবনের ক্লান্তিতে একটু আনন্দের পরশ নিতে প্রবীণ ক্লাবে ছুটে আসেন তারা। এমন উদ্যোগে খুশি স্থানীয় প্রবীন বয়োবৃদ্ধরা। তারা বলছেন, এমন উদ্যোগ প্রতিটি বিত্তশালীদের গ্রহন করা দরকার, যাতে প্রবীণেরা জীবনের শেষ প্রান্তে এসে কিছুটা হলেও থাকতে পারে প্রাণবন্ত।

Pabna Probin-5

আজ ১ অক্টোবর বিশ্ব প্রবীণ দিবস। ১৯৯০ সালে জাতিসংঘ প্রতিবছর পহেলা অক্টোবর আন্তর্জাতিক দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। প্রবীণদের সুরক্ষা এবং অধিকার নিশ্চিতের পাশাপাশি বার্ধক্যের বিষয়ে বিশ্বব্যাপী গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৯১ সাল থেকে এ দিবসটি পালন করা শুরু হয়।

পাবনা সদর উপজেলার ভাড়ারা ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামে প্রবীণ কল্যাণ ক্লাব গড়ে তুলেছেন শ্রীপুর গ্রামেরই বাসিন্দা গিভেন্সি গ্রæপের চেয়ারম্যান ও বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা খতিব আব্দুল জাহিদ মুকুল। সদর উপজেলার ভাড়ারা, দোগাছী ইউনিয়নের সীমানা ঘেঁষে স্থানীয় একজন ব্যবসায়ী প্রবীণদের কথা ভেবে, তাদের কিছু সময় ভালো থাকার কথা ভেবে এখানে গড়ে তুলেছেন এই ক্লাব।

প্রতিদিন বিকেলে বিভিন্ন মহল্লা থেকে প্রাণের টানে যেন প্রবীনেরা ছুটে আসছেন এখানে। পত্রিকা পড়ছেন, করছেন জীবনের সোনালী সময়ের ফেলে আসা গল্প। এভাবেই তাদের অবসর সময়ের কিছুটা কাটায় আনন্দে।

Pabna Probin-3

সমাজের মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয় এমন একটি জায়গায় পৌঁছেছে যখন নিজের সন্তানেরা বৃদ্ধা মাতাকে রাতের আঁধারে ফেলে আসছেন বাঁশের বাগানে, অথবা হাসপাতালে ভর্তি করে ভুল ঠিকানা দিয়ে এসে এক বিরক্তিকর ও অমানবিক অধ্যায়ের জন্ম দিচ্ছেন।

সেখানে এমন উদ্যোগে স্থানীয়ভাবে অনেক খুশি এখানকার বয়স্ক ব্যাক্তিরা। এই ক্লাবে আসা প্রবীণদেরকে ক্লাবের পক্ষ থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে শুকনো খাবার ও চা। যারা পান খান তাদের জন্য এই ব্যবস্থাও করেছে উদ্যোক্তারা।

প্রতি বৃহস্পতিবার বিকেলে এখানে এলাকার প্রবীণ ব্যাক্তিদের জন্য রাখা হয়েছে ডায়াবেটিক রোগ নির্নয়, প্রেসার মাপাসহ প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা। খুব বেশিদিন চালু হয়নি এই ক্লাবটি। চলতি বছরের ২৪ আগষ্ট স্থানীয় কয়েকজন উদ্যোমী মানুষকে এই ক্লাব প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রবীনদের দেখভাল করার জন্য পদক্ষেপ গ্রহন করেন খতিব আব্দুল জাহিদ মুকুল।

প্রতিদিন বিকেলের আসর নামাজ শেষে এখানে জড়ো হন স্থানীয় প্রবীনেরা। থাকেন ঘন্টা তিনেক। তারা পরস্পর মেতে ওঠেন তাদের রঙিন সময়ের গল্প কথনে। এদের অনেকেরই পরিবারের সময়ের বাইরেই এযেন এক অন্যরকম ভালো লাগা।

Pabna Probin-2

প্রবীণ কল্যাণ ক্লাবে আসা ইব্রাহিম হোসেন, আসাদুজ্জামান মন্টু, সাবের সরদার, আব্দুল গণি সহ কয়েকজন প্রবীণের সাথে আলাপকালে তারা জানান, তাদের আসলে বসার কোন জায়গা নেই। বিভিন্ন চায়ের দোকানে এখন দিন দিন বর্তমানের ছেলে ছোকড়াদের যে আচার আচরণ, তাতে অনেক সময় বিব্রত হন তারা। কিছু বলার নেই, বলা যায় না তাই অনেকটা নিরবে বসে থাকেন ইচ্ছে না থাকলেও। তাদের জন্য এই প্রবীণ ক্লাব এক আনন্দের ঠিকানা হয়ে গেছে। এখানে এসে বিভিন্ন ধরনের পত্র পত্রিকা তারা পড়ছেন। কোন কোন সময় বয়সের কারনে তাদের দাম যে পরিবারে কমে যাচ্ছে দিন দিন,এটা বুঝতে পারেন তারা। তাই যেটুকু সময় এখানে থাকেন ভালো লাগে তাদের।

এসব প্রবীণদের সেবা দিতে দিন দিন এখানে ছুটে আসছেন পাশের স্কুলের শিক্ষার্থীরাও। তারা স্বেচ্ছাশ্রমে সেবা করছেন এসব প্রবীণদের। পত্রিকা এনে দেওয়া, খাবার দেওয়া, পানি পান করানো এসব কাজ তারা করছেন হাস্যজ্জল মুখে। তাদের বক্তব্য, এক সময়ে তারাও তো হবেন এমন বৃদ্ধ মানুষ। তাদেরকে সহযোগিতা করলে নাকি ভালো লাগে তাদের।

প্রবীণদের ক্লাবে থাকা চিকিৎসা সেবাদানকারী কর্মী সুমনা খাতুন বলেন, প্রতি বৃহস্পতিবার প্রবীণদের ডায়াবেটিক, প্রেসার মাপাসহ প্রাথমিক চিকি]সা সেবা দেন তিনি। একবার যে আসে তাকে আবার একই তারিখে পরের মাসে আসতে বলা হয় চেক আপের জন্য। প্রতি মাসে চেকআপ করা রুটিন ওয়ার্কের মতো। আর প্রতি বৃহস্পতিবারের তার কাছে সেবা নিতে আসছেন এসব প্রবীনেরা।

Pabna Probin-1

এই প্রবীণ ক্লাবের উদ্যোক্তার প্রতিনিধি ও স্থানীয় সমন্বয়কারী আবুল বাশার বাবুল জানান, এই প্রবীণ ক্লাব খুব বেশিদিন গড়ে ওঠেনি। তবে তাদের কর্মপরিকল্পনা রয়েছে এখানে সকল কিছুর আয়োজন করা হবে, যাতে প্রবীনেরা বিনোদন পায়। তিনি জানান, এই ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা খতিব জাহিদ মুকুল এদেশে বৃদ্ধাশ্রম করেছেন। তিনিই দেশের প্রবীনদের কথা ভাবেন। স্থানীয় প্রবীণদের স্বাস্থ্য সেবা ও বিনোদনে এই ক্লাব গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখছে, আগামীদিনে এর কার্যক্রমের পরিধি আরো বাড়বে বলে আশাবাদী তিনি।

প্রবীণদের জন্য পাবনার এই ব্যাতিক্রমী উদ্যোগ, স্থানীদের মাঝে সাড়া জাগিয়েছে। এখানে ভবিষ্যতে প্রবীণদের জন্য হাসপাতাল করাসহ নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহনের সম্ভাবনাও দেখছেন নাগরিক প্রতিনিধিরা।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign