পাবনা-১ আসন

দল পাল্টিয়েও জয়ের ধারায় ফিরতে পারলেন না আবু সাইয়িদ!

মঙ্গলবার, ০১ জানুয়ারি ২০১৯ | ৮:০৮ অপরাহ্ণ | 517 বার

দল পাল্টিয়েও জয়ের ধারায় ফিরতে পারলেন না আবু সাইয়িদ!
শামসুল হক টুকু ও অধ্যাপক আবু সাইয়িদ
Advertisements

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আওয়ামীলীগের প্রার্থী সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর কাছে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হলেন পাবনা-১ (সাঁথিয়া-বেড়ার আংশিক) আসনের গণফোরাম সদস্য, ঐক্যফ্রন্টের ধানের শীষের প্রার্থী অধ্যাপক আবু সাইয়িদকে। শেষ পর্যন্ত দল পাল্টিয়েও জয়ের ধারায় ফিরতে পারলেন না বর্ষিয়ান এই রাজনীতিবিদ।

সদ্য সমাপ্ত সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে ১২০টি ভোট কেন্দ্রের ফলাফলে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু পান ২ লাখ ৮২ হাজার ৯৯২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি গণফোরাম সদস্য, ঐক্যফ্রন্টের ধানের শীষের প্রার্থী অধ্যাপক আবু সাইয়িদ পেয়েছেন মাত্র ১৫ হাজার ৩৯১ ভোট।

তথ্য মতে, অধ্যাপক আবু সাইয়িদ ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আওয়ামীলীগ সরকারের তথ্য প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। ১/১১’র পর কেন্দ্রীয় রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়েন দলের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অধ্যাপক আবু সাইয়িদ। এরপর থেকে তিনি সংস্কারপন্থী কাতারে চলে যান।

আর তার নির্বাচনী এলাকায় এককভাবে দলীয় প্রভাব বিস্তার করেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সম্পাদক, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু এমপি। একাদশ নির্বাচন ঘিরে তিনি এলাকায় আওয়ামীলীগের দলীয় প্রচার প্রচারণা চালালেও নৌকা প্রতীকের দলীয় মনোনয়ন থেকে আবারও ছিটকে পড়েন সাইয়িদ।

জানা যায়, দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে ক্ষোভেই তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতি থেকে সটকে পড়েন। যোগ দেন ড. কামাল হোসেনের গণফোরামে। গণফোরামের কর্ণধার ড. কামাল হোসেন জোট বাঁধের বিএনপি-জামায়াতের সাথে। তৈরী করেন ঐক্যফ্রন্ট। আর ওই ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবী করে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ভিআইপি হিসেবে খ্যাত পাবনা-১ আসনে নির্বাচনী মাঠে নামেন অধ্যাপক আবু সাইয়িদ।

আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় নামার প্রথমেই দূর্বৃত্তের হামলার শিকার হন তিনি। এই হামলায় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী আবু সাইয়িদ শামসুল হক টুকুর সন্ত্রাসী ও দূর্বৃত্ত বাহিনীর উপর দায় চাপালেও আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে সাংবাদিক সম্মেলন করে জানানো হয়, আওয়ামীলীগ বা অঙ্গ সংগঠন নয়, তার উপর হামলা করেছে নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় যুদ্ধাপরাধী সমর্থিত জামায়াতে ইসলামীর জামায়াত-শিবিরের একটি বৃহৎ অংশ।

মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে স্বাধীনতার পক্ষের সর্ববৃহৎ শক্তি আওয়ামীলীগের রাজনীতি ছেড়ে গণফোরামে যোগ দিয়ে বিএনপি-জামাতের ধানের শীষের প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন এমন প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ সাংবাদিকদের বলেন, কোন দলই আমার কাছে বড় নয়। আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষ অসহায়, সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। তাদের রক্ষা করতে, তাদের উদ্ধার করতেই আমি এখানে আওয়ামীলীগের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছি।

তিনি বলেন, আমি সন্ত্রাসী লালন-পালন করিনা, মাদকের ব্যবসা করিনা, অস্ত্রের ঝনঝনানি বুঝিনা। আমি আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষদের ভালোবাসি, পাশে থাকতে চাই।

এদিকে নির্বাচনী এলাকার শীর্ষ আওয়ামীলীগ নেতাদের সাথে আলাপকালে তাদের দাবী, গত ১০ বছরে নির্বাচিত সাংসদ হিসেবে এলাকার মানুষের কাছে যেতে পেরেছেন, আস্থার জায়গা করে নিয়েছেন শামসুল হক টুকু। এবারও ভোটাররা স্বতঃর্স্ফূতভাবে তাকে সমর্থন দিয়েছেন। তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করেছেন। গত রোববার ভোটের ফলাফল সেটা প্রমাণ করে।

আওয়ামীলীগের নেতারা বলেন, দলের একজন নিবেদিত প্রাণ হিসেবে খ্যাত সাইয়িদ, দল তাকে মন্ত্রীত্ব দিয়েছিলেন। অথচ তিনি দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে দলের সাথে বেঈমানী শুধু করেননি। নিজ এলাকার সাধারণ মানুষের সাথে বিশ্বাস ঘাতকের কাজ করেছেন।

এ বিষয়ে শামসুল হক টুকু বলেন, এ বিজয় মানুষের ভালবাসার বিজয়। এ বিজয় উন্নয়নের বিজয়। এ বিজয় নৌকার বিজয়। এর মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে মানুষ উন্নয়নমুখি। এখন আর তারা পেছনে যেতে চায়না। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আমি আমার এলাকার মানুষকে সাথে নিয়ে সামনে এগিয়ে যাবো।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ সমর্থকরা বলছেন, বিএনপি এই আসনে প্রার্থী দিতে ভুল করেছে। জামায়াত ও বিএনপির একটা বড় অংশ সাইয়িদের পাশে না দাঁড়য়নি। সেইসাথে তারা ভোটও দেয়নি। এ কারণেই টুকুর কাছে হারলেন সাইয়িদ।

পরাজয়ের বিষয়ে আবু সাইয়িদ বলেন, ভোটের দিনের আগের রাতে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ব্যালটে নৌকায় সিল মেরে রাখা হয়েছে। ভোটের দিন কেন্দ্রে যেতে বিএনপি সমর্থকদের বাধা দিয়ে ভোট কেন্দ্র দখল করে রেখেছে নৌকার সমর্থকরা। এজেন্টদের কেন্দ্রে যেতে দেয়া হয়নি, আবার অনেক কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে। সাধারণ মানুষ স্বত:স্ফুর্ত ভোট দিতে পারেনি। প্রশাসনও নৌকার পক্ষে কাজ করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh