চাটমোহর প্রেসক্লাব নিয়ে নতুন ষড়যন্ত্র ; বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান

রবিবার, ০৫ মে ২০১৯ | ১০:২০ অপরাহ্ণ | 395 বার

চাটমোহর প্রেসক্লাব নিয়ে নতুন ষড়যন্ত্র ; বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান
প্রতিকী ছবি
Advertisements

পাবনার ঐতিহ্যবাহি চাটমোহর প্রেসক্লাব নিয়ে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। প্রেসক্লাব থেকে বহিষ্কৃত কয়েকজন সদস্য ফের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে, গত শুক্রবার (০৩ মে) প্রতারণা করার অভিপ্রায়ে ‘চাটমোহর প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক কমিটি গঠন’ করার কথা এসেছে। কথিত ওই কমিটিতে সভাপতি হিসেবে হেলালুর রহমান জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জাহাঙ্গীর আলমের নাম প্রকাশ করা হয়েছে।

অথচ চাটমোহর প্রেসক্লাবের বর্তমান সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ কোন সদস্য বিষয়টি জানেন না। বহিষ্কৃত সদস্যরা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে, বিশেষ সুবিধা আদায়ের অপচেষ্টার অংশ হিসেবে চাটমোহর প্রেসক্লাবের নাম ব্যবহার করে কথিত একটি কমিটি গঠন করেছেন, যার কোনো ভিত্তি নেই। জনমনে বিভ্রান্তি তৈরীর অপচেষ্টা মাত্র।

এ কারণে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে চাটমোহর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে আহবান জানানো হচ্ছে, তথাকথিত ওই কমিটি থেকে সবাই সতর্ক থাকুন। কেউ বিভ্রান্ত হবেন না।

চাটমোহর প্রেসক্লাব একটি। যার বর্তমান সভাপতি রকিবুর রহমান টুকুন ও সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত সাহা কিংশুক। সম্প্রতি চাটমোহর প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন বা কমিটি গঠন করা হয়নি। যে তথাকথিত কমিটি গঠন হয়েছে তা চাটমোহর প্রেসক্লাবের কোনো কমিটি নয় এবং যারা কমিটি গঠন করেছে তাদের সাথে চাটমোহর প্রেসক্লাববের কোন সম্পৃক্ততা নেই।

চাটমোহর প্রেসক্লাবের নাম ভাঙ্গিয়ে কথিত ওই কমিটির কেউ যদি কোথাও কোনো ধরনের অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার অপচেষ্টা করে, তবে তাদের প্রতিহত করুন বা দুরে থাকুন। পাশাপাশি চাটমোহর প্রেসক্লাবের পদ, পদবী, পরিচয় প্রদান করে কোন অযৌক্তিক সুবিধা আদায়ের চেষ্টা করলে তাদের আইন-শৃংখলা বাহিনীর হাতে সোপর্দ করুন। তাদের বিষয়ে কোনো দায়ভার চাটমোহর প্রেসক্লাব বহন করবে না।

১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত চাটমোহর প্রেসক্লাব গঠনতন্ত্র মোতাবেক সুনামের সাথে পরিচালিত হচ্ছে। সদস্যদের প্রত্যক্ষ ভোটে উৎসবমুখর পরিবেশে দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হয়। এর আগে গঠনতন্ত্র মোতাবেক গোপন ব্যালটের মাধ্যমে প্রেসক্লাবের যে দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল, সেই নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর থেকে বেপরোয়া হেলালুর রহমান জুয়েল ও এস এম হাবিবুর রহমান গং প্রেসক্লাবের সভাপতি-সম্পাদক এবং সদস্যদের নিয়ে অশালীন, কুরুচিপুর্ন ভাষায় বিভিন্ন পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে লেখালেখি করে প্রেসক্লাবের সুনাম ও ঐতিহ্য ক্ষুন্ন করেন।

শুধু তাই নয়, সাধারণ সম্পাদক পদে পরাজিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমকে দিয়ে প্রেসক্লাবের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা পর্যন্ত করাতে পিছপা হননি তারা। মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে। সেখানে কুল কিনারা না পেয়ে এখন নতুন করে ষড়যন্ত্রে নেমেছেন তারা।

চাটমোহর প্রেসক্লাবের নির্বাচিত কমিটি থাকা সত্ত্বেও একই সংগঠনের নাম ব্যবহার করা নৈতিক ভ্রষ্টতার সামিল, কথিত একটি কমিটি গঠন করে ক্ষমতা লোভী কতিপয় ব্যক্তিরা জনমনে বিভ্রান্তি তৈরী ও প্রভাব বিস্তারের অপচেষ্টা করছেন। যা কাম্য নয়।

রোববার সকালে চাটমোহর প্রেসক্লাবের জরুরী সাধারণ সভায় এসব ষড়যন্ত্রকারীদের কার্যক্রমের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন সকল সদস্য। চাটমোহরের সাংবাদিকদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির এই অপচেষ্টারও প্রতিবাদ জানান সদস্যরা।

সবার জ্ঞাতার্থে একটি তথ্য জানানো প্রয়োজন তা হলো-ইতিপুর্বে চাটমোহর প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র পরিপন্থি কাজে লিপ্ত হওয়ায় সাধারণ সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে হেলালুর রহমান জুয়েল, এস এম হাবিবুর রহমান, মহিদুল ইসলাম খাঁন, এস এম আলম বাবলুকে প্রেসক্লাব থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়। আর তাদের গঠিত কথিত ওই কমিটিতে জাহাঙ্গীর আলম ছাড়া বাকি সদস্যদের কেউই চাটমোহর প্রেসক্লাবে সদস্য কখনও ছিলেন না বা এখনও নাই। তারা কি উদ্দেশ্যে কমিটি গঠন করেছেন তা সবার কাছে পরিষ্কার।

আহবানে:-
চাটমোহর প্রেসক্লাবের সদস্যদের পক্ষে
রকিবুর রহমান টুকুন
সভাপতি, চাটমোহর প্রেসক্লাব

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh