উপজেলা নির্বাচন

চাটমোহর আ’লীগের তিন বিদ্রোহী প্রার্থী

মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ | 461 বার

চাটমোহর আ’লীগের তিন বিদ্রোহী প্রার্থী
Advertisements

পাবনার চাটমোহরে আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের তিন বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিলেন। সোমবার জমাদানের শেষ দিন বিকেল পর্যন্ত সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. রুহুল আমিনের কাছে প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দেন। দুপুরে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো মনোনয়ন পত্র জমা।

এরপর বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র জমা দেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল হামিদ মাস্টার, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মির্জা আবু হায়াত মো. কামাল জুয়েল ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুল আলীম। এছাড়াও জাপা (এরশাদ) মনোনীত এ্যাডভোকেট মো. আবদুস ছাত্তারও মনোনয়ন পত্র জমা দেন। তবে বিএনপির কোন নেতা মনোনয়নপত্র জমা দেননি।

দলীয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো দীর্ঘদিন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সদ্যসমাপ্ত জাতীয় নির্বাচনে তিনি দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। এরআগে তিনি উপজেলা ও পৌর নির্বাচনে পরাজিত হন। সদ্য সমাপ্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য পদে মনোনয়ন না পেলেও দল তাকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিয়েছে।

এদিকে ত্যাগী নেতা হিসেবে পরিচিত আলহাজ্ব আবদুল হামিদ মাস্টার দীর্ঘদিন ধরে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দলের দুঃসময়ে নেতাকর্মীদের সংগঠিত করতে তিনি প্রতিনিয়ত কাজ করে গেছেন। জাতীয় নির্বাচনে তিনিও দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। সম্প্রতি তিনি কর্মী সভার মধ্যে দিয়ে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা ঘোষণা দেন।

অপরদিকে চাটমোহর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মির্জা আবু হায়াত মো. কামাল জুয়েল বিগত জেলা পরিষদ সদস্য নির্বাচনে সদস্য পদে হেরে যান। দীর্ঘদিন ধরে তিনিও পৌর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আগলে রেখেছেন।

অন্যদিকে সাধারণ ভোটার থেকে শুরু করে দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে বেশ পরিচিত মুখ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুল আলীম সবার নজর কাড়ছেন। দীর্ঘদিন উপজেলা ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত রাখা এবং সদ্য সমাপ্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করতে তার ভূমিকা ছিল চোখে পড়ার মতো।

তবে চেয়ারম্যান পদে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগে কোন্দলের ব্যাপারটি আবারও প্রকাশ্যে রুপ নিয়েছে। উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে দলের মধ্যে বিভক্তি নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তৃণমুলের নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে হতাশা। এমন বিভেদ চলতে থাকলে নির্বাচনের আগে ও পরে নিজেদের মধ্যে সংঘাতের আশঙ্কা করছেন সাধারণ ভোটার ও তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

এদিকে ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. ইসাহাক আলী মানিক, মথুরাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, আওয়ামী লীগ নেতা শামসুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মো. সোলায়মান হোসেন, পৌর তাঁতী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান পান্না মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন।

এছাড়া মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক সাজেদা রহমান, ডিবিগ্রাম ইউপি সদস্যা আফরিনা আক্তার লিলি, আওয়ামীলীগ নেত্রী দেলোয়ারা হালিম ও প্রভাষিকা ফিরোজা পারভীন।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh