চাটমোহরে হাটে-বাজারে ‘খৈলশুনি’ বিক্রির ধুম

শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০১৯ | ৯:৫৩ পূর্বাহ্ণ | 415 বার

চাটমোহরে হাটে-বাজারে ‘খৈলশুনি’ বিক্রির ধুম
Advertisements

চলনবিল অধ্যুষিত পাবনার চাটমোহর উপজেলায় বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকেই দেশি প্রজাতির ছোট মাছ ধরার উপকরণ বাঁশের তৈরি ‘খৈলশুনি’ বিক্রির ধুম পড়েছে।

বাঁশ, সুতা ও তালগাছের আঁশ দিয়ে তৈরি এসব খৈলশুনি ভালো মানের হওয়ায় শুধু এ অঞ্চলেই নয়, হাওরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার মাছ শিকারিরাও চাটমোহরের বিভিন্ন হাটবাজার থেকে পাইকারি কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

বর্ষার শুরু থেকেই উপজেলার ঐতিহ্যবাহী অমৃতকুন্ডা, মির্জাপুরসহ বিভিন্ন হাটে ক্রেতা বিক্রেতাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

সরেজমিনে উপজেলার অমৃতকুন্ডা হাটে গিয়ে দেখা যায়, বাঁশের তৈরি ‘খৈলশুনি’র পসরা সাজিয়ে বসেছেন বিক্রেতারা। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসেছেন ক্রেতারা। প্রতি হাট বারে শত শত ‘খৈলশুনি’ বিক্রি হচ্ছে এসব হাট-বাজার থেকে।

বর্ষা মৌসুমে এই মাছ ধরার উপকরণের কদর বেশি হওয়ায় ‘খৈলশুনি’ তৈরির সঙ্গে জড়িত পরিবারগুলো মৌসুমের দুই-তিন মাসেই প্রায় সারা বছরের আয় করে নেন। প্রতিটি ভাল মানের ‘খৈলশুনি’ ২৫০/৩০০ টাকায় বিক্রি হয়ে থাকে।

তবে একটু নিম্নমানের খৈলশুনি বিক্রি হয় ১৮০/২০০ টাকায়। প্রতিবছর বর্ষার পানি চলনবিলের খাল-বিল, নদ-নদীতে প্রবেশ করার সাথে সাথে মৎস শিকারীদের কাছে জনপ্রিয় এ উপকরণের চাহিদা বেড়ে যায়।

অমৃতকুন্ডা হাটে খৈলশুনি কিনতে আসা কুষ্টিয়ার আসাদুল ইসলাম, রাজবাড়ির পাংশা উপজেলার আবদুল হান্নান, তাড়াশ উপজেলার হারাধন মিস্ত্রিসহ বেশ কয়েকজন মৎস শিকারী জানান, অমৃতকুন্ডা হাটে খুব ভালো মানের খৈলশুনি পাওয়া যায়। এছাড়া দামেও অনেক সস্তা। যে কারণে পাইকারী কিনে এলাকায় নিয়ে বিক্রি করার পাশাপাশি নিজেরাও মাছ ধরে থাকেন।

খৈলশুনি বিক্রেতা উপজেলার খতবাড়ী গ্রামের মো. মোস্তফা, আবুল হোসেন জানান, চাটমোহরে ভাল মানের ‘খৈলশুনি’ তৈরি হয়। যে কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে সবাই কিনতে আসেন। বর্ষার সময় চাহিদা বেশি থাকায় খৈলশুনি বিক্রি করে ভাল আয় হয়। যা দিয়ে সারা বছরের খরচ উঠে যায়।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh