দুর্ঘটনার আশংকা

চাটমোহরে যত্রতত্র বিক্রি হচ্ছে এলপি গ্যাস ও পেট্রল

মঙ্গলবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ | 642 বার

চাটমোহরে যত্রতত্র বিক্রি হচ্ছে এলপি গ্যাস ও পেট্রল

পাবনার চাটমোহরে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে অবাধে বিক্রি হচ্ছে এলপি গ্যাস সিলিন্ডার ও পেট্রল। অধিকাংশ বিক্রেতার নেই কোন বিস্ফোরক লাইসেন্স। চাউল, ইলেকট্রনিক্স, মোবাইল, হার্ডওয়্যার, জুয়েলারি, পান বিড়ি, মুদি দোকানসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং আবাসিক এলাকায় এলপি গ্যাস সিলিন্ডার মজুত করে সবাই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন নির্বিঘ্নে।

আর রাস্তার পাশে টেবিলে কন্টেইনারে রেখে বিক্রি হচ্ছে পেট্রোল-ডিজেল। আর এই ব্যবসা ছড়িয়ে পড়েছে গ্রামেগঞ্জে। অথচ নিয়ম অনুযায়ী এলপি গ্যাস ব্যবহার, বিপনন ও বাজারজাত করতে হলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা ব্যবসায়ীকে বিস্ফোরক অধিদফতরের লাইসেন্স ও অগ্নিনির্বাপক গ্যাস সিলিন্ডার বাধ্যতামূলক সংরক্ষণ করার কথা। কিন্তু উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের প্রায় ব্যবসায়ীর এলপি গ্যাস বিক্রির বৈধ লাইসেন্স নেই।

সরেজমিন দেখা গেছে, আইনের তোয়াক্কা না করে ব্যবসায়ীরা দোকানে ও গুদামে গ্যাস সিলিন্ডার মজুত রেখে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া দোকানের সামনের ফুটপাতে, জনাকীর্ণ এলাকায় যত্রতত্র গ্যাস সিলিন্ডার ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রেখে বিক্রি হচ্ছে।

পৌর শহরের কলেজ রোড, থানা গেট, বাসষ্ট্যান্ড, স্টার হোটেল মোড়, সোনাপট্রি, হরিসভা রোড, শাহী মসজিদ মোড়, নতুন বাজার এলাকার খেয়াঘাট, জারদ্রিস মোড়, হাসপাতাল রোড এলাকায় যত্রতত্র ব্যবসায়ীরা রাস্তার ওপর সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে রেখেছেন গ্যাস সিলিন্ডার ও গ্যাসের চুলা। আরও রেখেছেন পেট্রল ও ডিজেল।

অন্য ব্যবসার পাশাপাশি নির্বিঘ্নে চালিয়ে যাচ্ছেন এলপি গ্যাস ও পেট্রোলের ব্যবসা। বেশিরভাগ ব্যবসায়ীর নেই বিস্ফোরক লাইসেন্স। নেই অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্রও। এতে যে কোনো মুহূর্তে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের মাধ্যমে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। বা কোথাও আগুন লাগার পর পেট্রলের কারণে আগুনের ভয়াবহতা বাড়তে পারে।

আর খোলা বাজারে পেট্রোল বিক্রির অনুমোদনই নেই। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নজরদারির অভাবে যত্রতত্র এলপি গ্যাস সিলিন্ডার ও পেট্রল বিক্রি হচ্ছে বলে সচেতন মহলের অভিযোগ। অচিরেই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এসব বন্ধের আহবান জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

কথা হয় কয়েকজন এলপি গ্যাস সিলিন্ডার ও পেট্রল ব্যবসায়ীর সঙ্গে। তারা জানান, এলপি গ্যাস ও পেট্রল বিক্রির নিয়মকানুন তারা জানেন না। কিভাবে বিস্ফোরক অধিদফতরের লাইসেন্স করতে হয় তাও জানেন না তারা। অধিক লাভের আশায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তারা গ্যাস সিলিন্ডার ও পেট্রল মজুত ও বিক্রি করছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকার অসীম কুমার জানান, ‘খোলা বাজারে গ্যাস ও পেট্রল বিক্রি করা যাবে না। বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। আমি শিগগিরই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেব।’

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign