গণপূর্ত প্রকৌশলী সাত্তারকে অফিস কক্ষে পেটালেন ঠিকাদার নয়ন

সোমবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১১:০৪ অপরাহ্ণ | 374 বার

গণপূর্ত প্রকৌশলী সাত্তারকে অফিস কক্ষে পেটালেন ঠিকাদার নয়ন
পাবনা গণপূর্ত বিভাগ। ইনসেটে প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তার (বামে) ও ঠিকাদার মোকছেদুল আলম নয়ন (ডানে)। ছবি : খোঁজখবর ডটনেট

পাবনায় গণপূর্ত বিভাগে ঠিকাদারদের অস্ত্রের মহড়ার পর এবার কার্যালয়ে ঢুকে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তারকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালী এক ঠিকাদার মোকছেদুল আলম নয়নের বিরুদ্ধে। সোমবার (০৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে গণপূর্ত ভবনে নির্বাহী প্রকৌশলীর কক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

পাবনা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী দেবাশীষ চন্দ্র সাহা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এ ঘটনায় একইদিন সন্ধ্যা সাতটার দিকে পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী ওই প্রকৌশলী।

অভিযোগে জানা গেছে, পাবনা পৌর এলাকার চক ছাতিয়ানী মহল্লার প্রভাবশালী ঠিকাদার মেসার্স নুর কনস্ট্রাকশনের স্বত্বাধিকারী মোকছেদুল আলম নয়ন গণপূর্ত বিভাগের বেশ কিছু কাজ ঝুলিয়ে রেখেছেন দীর্ঘদিন ধরে। তাকে বারবার তাগাদা দিলেও তিনি আমলে নেননি। সোমবার এ বিষয় নিয়ে নির্বাহী প্রকৌশলীর কক্ষে কথা বলতে আসেন ঠিকাদার নয়ন। এ সময় নির্বাহী প্রকৌশলী তার কক্ষে ছিলেন না।

উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তারকে তাকে অসমাপ্ত কাজগুলো তুলে দেয়ার জন্য বললে তিনি উত্তেজিত হয়ে উঠেন। এক পর্যায়ে তিনি অশালীন ভাষা প্রয়োগের এক পর্যায়ের ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে প্রকৌশলী সাত্তারকে কিল ঘুষি ও লাথি মারতে শুরু করেন। তার চিৎকারে অফিসের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন। এ সময় অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করতে করতে ঠিকাদার নয়ন অফিস থেকে বের হয়ে যান।

এদিকে, লাঞ্ছনার ঘটনায় সোমবার সন্ধ্যায় ঠিকাদার নয়নের বিরুদ্ধে পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন ভুক্তভোগী উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তার।

ঘটনার বিষয়ে তিনি বলেন, নির্বাহী প্রকৌশলীর কক্ষে ঠিকাদার নয়নকে তার অসমাপ্ত কিছু কাজ নিয়মমাফিক শেষ করতে বলি। এ সময় হঠাৎ তিনি উত্তেজিত হয়ে গালাগাল শুরু করেন। আমি প্রতিবাদ জানালে মারপিট শুরু করেন। নিজেদের অফিসে এমন অপমানিত হবো, কখনো কল্পনাও করিনি। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

পাবনা গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী দেবাশীষ চন্দ্র সাহা বলেন, এর আগেও ঠিকাদাররা অস্ত্রের মহড়া দিয়ে শাসিয়েছে। ঠিকাদাররা কাজ নেবেন। কাজ না করলে বললেই যদি আমাদের অপরাধ হয় তাহলে বলার কিছুই থাকেনা। এগুলো বন্ধ হওয়া জরুরী বলে দাবী করেন তিনি।

পাবনা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম বলেন, অনেক ঠিকাদারের সাথেই আমাদের কথা কাটাকাটি হয়। তাই বলে মারধর করবে এটা আমরা প্রত্যাশা করি না। আব্দুস সাত্তারকে মারপিটের কথা শুনেই আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নিয়েছি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ঠিকাদার মোকছেদুল আলম নয়নের মুঠোফোনে বার বার ফোন দিলে তিনি রিসিভ করেননি। ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়েও তার সাড়া পাওয়া যায়নি। এছাড়া শহরের ছাতিয়ানি এলাকায় তার বাড়িতে গিয়েও পাওয়া যায়নি।

পাবনার পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান বলেন, ভুক্তভগেী প্রকৌশলী থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। গণপূর্ত বিভাগ চাইলে নিরপত্তার ব্যবস্থা করা হবে।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৬ জুন ঠিকাদারী কাজের অজুহাতে আওয়ামীলীগ নেতা এ আর খান মামুন ও যুবলীগ নেতা শেখ লালু তাদের বাহিনী নিয়ে অস্ত্রের মহড়া দেয়। ঘটনাটি বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তিন মাসের মাথায় আবারও এ ধরনের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে আতংক আর উৎকন্ঠা বেড়ে গেছে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh

ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ WebNewsDesign