কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছে পাবনার ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা

বৃহস্পতিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২০ | ৫:১৭ অপরাহ্ণ | 123 বার

কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছে পাবনার ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা
Advertisements

বর্তমানে দেশে বোরো ধান কাটার ভরা মৌসুম শুরু হয়েছে। তার মাঝে ধান কাটার শ্রমিক সংকটে পড়েছেন কৃষকরা। করোনা পরিস্থিতিতে দেশের দূর্যোগপূর্ন মুহুর্তে সেচ্ছাশ্রমে সাধারন কৃষকের পাশে দাঁড়িয়েছে পাবনার ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

পাবনা থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ধান ধানকাটার শ্রমিক পাঠিয়েছে প্রশাসন। জেলাতে আগাম পাকা ধান কাটা শুরু করেছে সাধারন কৃষকেরা। আর এই সমস্যার সংকট উত্তোরণের জন্য কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছে পাবনা জেলা ছাত্রলীগের কর্মীরা।

জেলার সবচাইতে বেশি ধান উৎপাদনকারী উপজেলার মধ্যে চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর, সুজানগর ও পাবনা সদর উপজেলা। সম্প্রতি পাবনা সদর উপজেলার দোগাছি উইনিয়নের রাজাপুর গ্রামের করিম শেখের দুই বিঘা জায়গার ক্ষেতের ধান কেটে মাড়াই করে কৃষকের আঙ্গিনায় পৌঁছে দিলো ছাত্রলীগের কর্মীরা। প্রায় অর্ধশত ছাত্রলীগ নেতাকর্মী এই ধান কাটার কাজে অংশগ্রহণ করেন।

পাবনা জেলা ছাত্রলীগের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে সাধারন কৃষকের পাশে থাকার প্রতিশ্রæতি দিয়েছেন তারা। আর তাদের আহবানে সাড়া দিয়ে ধান কেটে দিচ্ছে ছাত্রলীগ কর্মীরা। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পরামর্শে এই বছরে আরো বেশি কাজ করতে চান তরা।

জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ফিরোজ আলী ও সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিব বিশ^াস জানান, এই ধান কাটার কার্যক্রম তারা বিগত বছরেও করেছেন। এবছর জেলার প্রতিটি ইউনিটের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কৃষকের পাশে থাকার জন্য বলা হয়েছে। তবে করোনা পরিস্থিতিতির কারনে সামাজিক দূরত্ব বজায়ে রেখে কাজ করা অনেকটা কষ্টকর হলেও চেষ্টা করা হচ্ছে সাবধানে কাজটি করার। এই পর্যন্ত ছাত্রলীগ জেলাতে প্রায় ৩০ বিঘা জমির ধান কেটে দিয়েছে। প্রতিবিঘা জমির ধান কাটার খরচ হয় প্রায় চার হাজার টাকা। এই কাজের জন্য কৃষক ও জমির মালিক খুশি ছাত্রলীগের এমন উদ্যোগে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আজহার আলীর দেয়া তথ্য মতে, এবার পাবনা জেলাতে ৫১ হাজার তিনশত হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ হয়েছে। ইতিমধ্যে কিছু কিছু জমির ধান কাটা শুরু হলেও সরকারিভাবে ২০ মে আনুষ্ঠানিকভাবে ধান কাটা শুরু হবে। তবে গতবারের চেয়ে এবার ধান কাটার শ্রমিকের বেশি সংকট দেখা দেবে বলে মনে করছেন তিনি।

এই কৃষি কর্মকর্তা মনে করেন, কোন সংগঠন বা ব্যক্তি উদ্যোগে যদি সাধারণ কৃষকের ক্ষেতের ফসল কেটে দেয় এটি অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। আর ছাত্রলীগ এই কাজ খুব সহজে করতে পারে। এই ধানকাটার মাধ্যমে কৃষক যেমন আর্থিকভাবে লাভবান হবেন তেমনি জনকল্যাণে জনসেবায় ছাত্রলীগ সারা বাংলাদেশে প্রশংশিত হবে।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh