ঈশ্বরদীতে সবজি বিতরণ করলেন তানভীর

সোমবার, ২০ এপ্রিল ২০২০ | ৪:২৮ অপরাহ্ণ | 174 বার

ঈশ্বরদীতে সবজি বিতরণ করলেন তানভীর
Advertisements

ভয়াল করোনা ভাইরাসে সারা দেশের মত পাবনার ঈশ্বরদীতে প্রায় অধিকাংশ মানুষই কর্মহীন হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে নিম্ন মধ্যবিত্তের অবস্থা বেশি করুণ হয়ে পড়েছে। করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সারা দেশের মত ঈশ্বরদীতে অঘোষিত লকডাউন।

লকডাউনের শুরুর দিকে কয়েকদিন চালিয়ে নিতে পারলেও হতদরিদ্র রিকশাচালকদের জীবনধারণ কষ্টকর হয়ে পড়েছে অনেকেরই। সারাদিন রিকশা চালিয়ে দুই কেজি চালের দাম জোগাড় করতে হিমসিম খাচ্ছেন। করোনার আপদে এই পরিস্থিতিতে কৃষকের সবজি কিনে নিম্নআয়ের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং অনন্য এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা, পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান তানভীর ইসলাম।

সোমবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে পাবনার ঈশ্বরদী শহরের পৌর এলাকার দুটি ওয়ার্ডের হতদরিদ্র ও নিম্নআয়ের অসহায় রিকশা ভ্যানচালক ৫শ’ পরিবারের কাছে বিনামূল্যে কাঁচা তরিতরকারি সম্বলিত উপহার সামগ্রী তুলে দিলেন।

তানভীর আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে এতদিন সরকারি চাল, ত্রাণ বিতরণ এবং নিজ উদ্যোগে বিনামূল্যে সবজি বিতরণ করেছেন। উপজেলার বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় গিয়ে হ্যান্ড মাইক দিয়ে মাইকিং করে, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে শাক-সবজি বিতরণ করছেন তানভীর। ঈশ্বরদীর ধনী শ্রেনীর মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে তার এই আয়োজন।

ষাটোর্ধ বসয়ের আমেনা বেগম বলেন, আমরা এতটাই অসহায়,সরকারী কোন সহযোগীতা আমরা পায়নি। আমাদের উপজেলা চেয়ারম্যান না আসলেও আটঘরিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান এসে আমাদের খোঁজ নিয়েছেন আর শাক-সব্জি-তরিতরকারি দিয়ে গেলেন। এটাই বেশ ভালো লাগছে।

পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডের রহিমপুর মহল্লার রিকশাচালক বাবর আলী জানান, ঈশ্বরদীতে অনেক ধনী শ্রেনীর লোক থাকলেও সাহায্য করার কেউ নাই। প্রথম আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান এসে সবজি দিলেন। আজকে আর কাঁচা বাজারের টেনশন রইলো না।

২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা, পিয়ারাখালী মহল্লার রিকশাচালক নয়ন হোসেন জানান, ‘তিন মেয়ে পরিবারসহ কষ্টে আছি। রাস্তায় লোকজন নাই, রিকশায় উঠার লোক নাই করোনাভাইরাস এর কারণে। সকাল থেকে দুইকেজি চালের টাকা জোগাড় করা কঠিন হয়ে গেছে। কাঁচা তরকারি পেয়ে কষ্ট তরিতরকারি কেনার কষ্ট রইলো না।

ব্যাতিক্রম এই উদ্যোগ প্রসঙ্গে তানভীর ইসলাম বলেন, ‘সরকার বিভিন্নভাবে চাল-ডাল দিচ্ছে, কিন্তু মানুষের আরও কিছু জিনিস যেমন কাঁচা তরকারি, সবজি এগুলো দরকার হয়। অভাবের তাড়নায় অনেকে ঘর থেকে বের হয়েছে। রিকশা চালিয়ে দুইকেজি চালের দাম জোগাড় করতে পারলেও শাক-সব্জি তরিতরকারি কিনতে অনেকটা কষ্ট হচ্ছে। আমার এটা কোন ত্রাণ কার্যক্রম নয়।আমার সামর্থ্য অনুযায়ী সবজি, সামগ্রী উপহার দিচ্ছি। আমার এই কার্যক্রমে ব্যক্তিগতভাবে তেমন বেশি খরচ হয়নি। তবে আমার মত ঈশ্বরদীর অনেক ধনী শ্রেনীর মানুষ একটু ইচ্ছা করলেই দেশের ক্রান্তিকাল সময়ে নিজ এলাকার মানুষের পাশে দাড়ানো সম্ভব।

প্রসঙ্গত, তানভীর সমস্ত উপজেলার মধ্যে সে বাংলাদেশের কনিষ্ঠতম উপজেলা চেয়ারম্যান। সর্বশেষ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন ছাত্রলীগের সাবেক এই কেন্দ্রীয় নেতা।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh