ঈশ্বরদীতে অদৃশ্য সাপ আতঙ্ক ; লাল সুতো বাঁধছে মানুষ

মঙ্গলবার, ০৯ অক্টোবর ২০১৮ | ১২:০৫ অপরাহ্ণ | 739 বার

ঈশ্বরদীতে অদৃশ্য সাপ আতঙ্ক ; লাল সুতো বাঁধছে মানুষ
Advertisements

সাপ দেখা যাচ্ছে না, কিন্তু মনে হচ্ছে সাপ কামড়াচ্ছে। সাপের ছোবলের মতো দাগ আর রক্ত মনে ভীতির সঞ্চার করেছে সাধারণ মানুষের মাঝে।

আর এই ‘অদৃশ্য সাপ’ আতঙ্কে ভুগছে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার মানুষ।

ছোবল দেয়ার পরে কেউ সাপ বা পোকা দেখতে পাচ্ছে না, তবে কিছুক্ষণ পরে শরীরে অনুভূতি হচ্ছে জ্বালা-পোড়া। খেয়াল করলে বোঝা যাচ্ছে ছোবলের দাগ ও রক্ত। কিছুক্ষণ পর শরীর হয়ে যাচ্ছে কালো। প্রায় শতাধিক মানুষ এ ছোবলের শিকার হয়েছেন বলে জানা গেছে।

সোমবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে এ খবর চাউর হলে গোটা ঈশ্বরদীতে সব বয়সী ছেলেমেয়ের মধ্যে বিরাজ করছে সাপ আতঙ্ক। এ সাপের ছোবল থেকে রক্ষা পেতে শিশু থেকে শুরু করে সকল বয়সীরা হাতে বাঁধছে লাল সুতো। কেউ কেউ কোরআন শরীফের বিভিন্ন আয়াত লিখে তাবিজ বানিয়ে ব্যবহার করছে।

ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলির দরগাপাড়া গ্রামের মেহেদি হাসান নিলয় বলেন, এলাকার সাধারণ মানুষ গুজব হিসেবে মনে করছিল। কিন্তু যখন পর্যায়ক্রমে এ গুজব চলে এলো গ্রামে গ্রামে, ঘরে ঘরে তখন আর কেউ এ ‘অদৃশ্য সাপ’কে অবিশ্বাস করতে পারছে না। শনিবার (৬ অক্টোবর) আমাদের দুই আত্মীয় অসুস্থ হয়ে পড়লে পরে ওঝার কাছে নিয়ে এসে বিষ তোলার পর এখন তারা সুস্থ।

দাশুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বকুল সরদার জানান, এ অদৃশ্য সাপের ছোবলের কথা প্রথমে শোনা যায় নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নে। এরপরেই চলে আসে পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নে। রোববার থেকে চলে এসেছে ঈশ্বরদী উপজেলার দাশুড়িয়া ইউনিয়নে।

ঈশ্বরদী হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার শফিকুল ইসলাম শামিম বলেন, এটা ভিত্তিহীন একটি খবর। বাস্তবে এরকম অদৃশ্য কোনো সাপ নেই। তাই ভয় পাওয়ার কিছুই নেই। এ ধরনের ঘটনা মাস হিস্টিরিয়া হতে পারে। মনে ভয় বা আতঙ্ক অতি দ্রুত একজন থেকে আরেকজনে ছড়িয়ে পড়ছে। আমরা সরেজমিন গিয়ে দেখেছি, এ ঘটনায় কেউ মারা যায়নি।

তিনি আরও বলেন, বাস্তবে খোঁজ নিয়ে দেখেন কাউকে সাপে কাটেনি/সাপে কাটার কোনো দাগও নাই। অনেক সময় দেখা যায় কোনো স্কুল বা কলেজে কোনো কারণ ছাড়াই এক সঙ্গে অনেক স্টুডেন্ট জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। আসলে কোনো রোগের কারণে তাদের এমন হয় না। ভয় বা আতঙ্ক দ্রুত একজন স্টুডেন্ট থেকে আরেজনে ছড়িয়ে পড়ে, ফলে তাদের একই রকম শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন লক্ষণ দেখা যায়। এটাই মাস হিস্টিরিয়া।

চিকিৎসকরা বলেন, গত কয়েক বছর আগে বর্ষার সময় এমন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল। পরবর্তীতে দেখা গেলো সাপ নয়। ঢোলকলমি ফুলের ভেতর এক ধরনের পোকা থাকে সেই পোকার কামড় এবং তা থেকে আতঙ্কের কারণে এমন হয়েছিল। তখন ঈশ্বরদীতে ঢোলকলমি গাছ কাটার ধুম পড়ে যায়। এটা আতঙ্ক ছাড়া আর কিছু নয়, বছরে কোন কোন সময় এমন গুজব প্রচার হয়ে থাকে। তাই কেউ এই গুজবে কান দিবেন না।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
khojkhobor.net-এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইটি সাপোর্ট ও ম্যানেজমেন্টঃ Creators IT Bangladesh